প্রত্যেক মানুষের জীবনযাত্রায় ভালো মন্দ সময়ের মধ্যে দিয়ে সময় অতিবাহিত করতে হয়। সেই ভালো মন্দের মধ্যেই থাকে সুখ ও দুঃখ। কিন্তু এই সুখ ও দুঃখ দুটোই অস্থায়ী। কারোর জীবনেই শুধু মাত্র যে সুখ থাকবে এটা হয় না বা কারোর জিবনে যে শুধু দুঃখ থাকবে এটাও হয় না।

কিন্তু মানুষ শুধু মাত্র সুখের খোঁজ করে। কি ভাবে সুখ পাওয়া যাবে সেটাই ভাবে । কিন্তু খারাপ সময় আসে তখন শুরু হয় আসল লড়াই।কি ভাবে খারাপ সময় বা দুঃখ অতিক্রম করে ভালো সময় বা সুখের সন্ধান পাওয়া যাবে , সেই লড়াইটাই আসল।কোনো ভাবে হার মানলে চলবে না। আর এখনকার দিনে আসল সুখ হলো টাকা । এই টাকার জন্যই মানুষের এত লড়াই।

আমরা সবাই জানি অন্ন ও অর্থের দেবী হলো দেবী মা লক্ষী। মা লক্ষী পরিতৃপ্ত হলে সংসারে সুখ বজায় থাকে। মা লক্ষী পরিতৃপ্ত না হলে সংসারে নেমে আসে দুঃখের ছায়া। তাই জেনে নেওয়া যাক কি কি ভাবে মা লক্ষী কে পরিতৃপ্ত করা যায় এবং আগের থেকে সাবধান হওয়া যায়।

১। অন্নকে মা লক্ষী হিসাবে মান্য করা হয়। তাই অন্নের অবহেলা করা মানে মা লক্ষী কে অবহেলা করা ।আর মা লক্ষী কে অবহেলা করলে আপনার নেমে আসতে পারে দুঃখের ছায়া ।তাই অন্নের অবহেলা করা উচিত না ।
২। মিথ্যা কথা বলা মহাপাপ । আর আপনার মিথ্যা কথা বলার কারণে যদি অন্য কোনো ব্যক্তি কষ্ট পায় তাহলে মা লক্ষ্মী রুষ্ট হন।

৩। যে সংসারে বৃদ্ধ মানুষের অপমান বা অবহেলা করা হয় সেই সংসারে কখনো লক্ষী বিরাজমান হন না। তাই কোনভাবে ভুল করেও যদি কোন বৃদ্ধ মানুষকে অপমান করে ফেলেন তাহলে সেই ভুল সংশোধন করে নেওয়া উচিত।
৪। সংসারে যদি নিত্যদিন কোন না কোন কারণে অশান্তি হয়ে থাকে তাহলে বুঝে নেবেন আপনার সংসার থেকে মা লক্ষ্মীর আশীর্বাদের হাত উঠে গেছে।