ভারত-চীন সংঘাত সীমান্ত রেখা লংঘন করা নিয়ে চরম উত্তেজনার মধ্যে দুই দেশ অবস্থিত। চীনের সঙ্গে পাঁচ ধরে সীমান্তে মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে ভারত। দুই দেশের পক্ষ থেকেই অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। দুই দেশের মধ্যে কয়েকবার ব্যর্থ আলোচনাও হয়েছে।বেশ কয়েকবার কমান্ডার লেভেলের বৈঠকের পরেও অবস্থার তেমন কোনও উন্নতি হয়নি।

ছলে-বলে চিন প্রায়ই ভারতকে হুমকি দিতে সচেষ্ট হয়ে উঠেছে। সবশেষ সোমবার চীনের মোল্ডো এলাকায় আলোচনার আগেই লাদাখ সীমান্তে অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান রাফায়েল উড়িয়েছে ভারতীয় বাহিনী।
-চীন সীমান্ত অসন্তোষের মধ্যে সদ্য ফ্রান্স থেকে কেনা এই বিমানবহরের লাদাখের আকাশে আনাগোনা বহু প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে।

জানা গিয়েছে, রবিবার সন্ধ্যের পড়ে আম্বালা এয়ারবেস থেকে লাদাখের উদ্দেশ্যে রওনা দেয় রাফায়েল যুদ্ধবিমান। লাদাখে পরিস্থিতির ওপর নজর রাখতেই রাফায়েলকে কাজে লাগানো হয়েছিল বলে মনে করা হচ্ছে।
এমনকি সোমবার সকালেও লাদাখ ও লে-র আকাশে উড়তে দেখা যায় রাফায়েল যুদ্ধবিমানকে। এরফলে স্পষ্ট, সীমান্তে একদিকে যেমন মোতায়েন সেনারা সজাগ রয়েছে, তেমনই বায়ুসেনাও নজর রাখছে চিনের ওপর।

এর আগে মিগ-২১, তেজস সহ একাধিক যুদ্ধবিমান দিয়ে আকাশ থেকে লাদাখের পরিস্থিতির দিকে নজরদারি চালিয়েছে ভারত। তবে এবার ময়দানে রাফায়েল জেটও। অর্থাৎ বায়ুসেনায় আনুষ্ঠানিকভাবে যোগদানের দশ দিনের মধ্যেই এই যুদ্ধ বিমানকে অ্যাক্টিভ ভাবে কাজে লাগানো হচ্ছে। ১০ সেপ্টেম্বর আনুষ্ঠানিক ভাবে ভারতীয় বায়ুসেনায় যোগ দিয়েছিল রাফায়েল ফাইটার জেট।

তবে এই সমস্ত যুদ্ধবিমান ছাড়াও অ্যাপাচি হেলিকপ্টার এবং চিনুক হেলিকপ্টারগুলিও সেনাবাহিনীকে নানান দরকারি জিনিস পৌঁছে দিতে এই মুহূর্তে সহায়তা করছে এবং সীমান্তে কড়া নজর রাখছে ভারতীয় বাহিনী। চিনের যে কোনও ভুল পদক্ষেপের উত্তর যে ভারত দেবে, সেকথা আর বলার অপেক্ষা নেই।
তবে উভয় দেশের তরফেই বারবার বলা হচ্ছে আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টি সমাধান করা হোক। যদিও চিন মুখে একথা বললেও কার্যক্ষেত্রে রং বদলাচ্ছে তাঁরা। ফলে সীমান্তে রয়েছে উত্তেজনা

প্রতিরক্ষা সূত্র জানিয়েছে, ১০ সেপ্টেম্বর আমবালা বিমান ঘাঁটিতে রাখা যুদ্ধবিমানগুলো সাম্প্রতিক দিনগুলোতে পরীক্ষামূলক মহড়া হিসেবে লাদাখে উড়েছে।

গালওয়ান সংঘর্ষের পরই ভারত-চীন নিজেদের আকাশসীমায় যুদ্ধবিমানের মহড়া দিচ্ছে। ভারতীয় বিমান বাহিনীর মিগ-২১ এবং তেজস যুদ্ধবিমান নিয়মিত আকাশে উড়ছে। চিনুক এবং অ্যাপাচি হেলিকপটারও দেখা যাচ্ছে। কিন্তু নতুন কেনা রাফাল কেন লাদাখের আকাশে তাই নিয়ে জল্পনা এখন তুঙ্গে।

এদিকে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমগুলো জানিয়েছে, সোমবার সকাল থেকে লাদাখের আকাশে উড়ছে রাফায়েল যুদ্ধবিমান।

এর আগে রোববার সন্ধ্যার পড়ে আম্বালা এয়ারবেস থেকে লাদাখের উদ্দেশে রওনা দেয় রাফাল যুদ্ধবিমান। লাদাখে পরিস্থিতির ওপর নজর রাখতেই রাফালকে কাজে লাগানো হয়েছিল বলে মনে করা হচ্ছে।

বলা হচ্ছে, ভারতীয় বিমান বাহিনী এসব যুদ্ধবিমানের মহড়া দিয়ে চীনা বাহিনীর ওপর নজর রাখছে।